1601432_323609171165548_7450211898657230319_nহেচকি মাজে মাজে খুব জামেলায় ফেলে দেয় l অনেক সময় খুব অসথিকর মনে হয় বিশেষ করে খাবারের সময় অথবা কোনো অনুষ্ঠানে l কেন হয় ইটা ……. আমাদের শরীরের ভ্যাগাস নার্ভ অথবা এঁর কোন একটি শাঁখা প্রশাখা যেগুলা (ব্রেন থেকে অ্যাবডোমেন পর্যন্ত বিস্তৃত ) বাধাপ্রাপ্ত অথবা উদ্দীপ্ত হয়। বিশেষজ্ঞগণ বলেন যে সাধারনত পরিপাকতন্ত্রের গোলমালের কারনে এটি হতে পারে। এটা বাচ্চাদের ও হতে দেখা যায়।

39dc706b411741169ac4cc469c0f9973
বার দেখা যাক হেঁচকি কেন হয় – দ্রুত খেতে চেষ্টা করলে, অনেক গরম ও মসলাদার খাবার খেলে, গরম খাবারের সঙ্গে খুব ঠান্ডা পানি বা পানীয় পান করতে শুরু করলে, অনেকক্ষণ ধরে হাসলে বা কাঁদলে হেঁচকি হতে পারে। আমি তো একটু ঝাল খেলেই ভাই সুরু হয়ে যায় …আর থামাতে পারিনা সহজে …..l সাধারণ কারণে হেঁচকি হলে তা একটু পর এমনিতেই বন্ধ হয়ে যাওয়ার কথা। তবে শারীরিক সমস্যা ও রোগে অনেক সময় বিরক্তিকরভাবে বারবার বা অবিরত হেঁচকি হতে পারে। বন্ধ করার কিসু উপায় : ১> এক চামচ চিনি নিন ও জিহ্বার পিছনে [যেখান দিয়ে টক স্বাদ নেন] রাখুন।এতি নার্ভের উত্তেজনা বাড়াবে ।
২> হঠাৎ করে অবাক হলে হিক্কা চলে যায়
৩>পানি খেলে হিক্কাচক্র বাধাগ্রস্থ হয়।পানি দিয়া গড়গড়া ও করতে পারেন
৪> কোটন বার্ড দিয়ে মুখের তলায় কাতুকুতু দিতে পারেন।
যেকোন ধরনের সুড়সুড়ি হিক্কা রোধে কাজ করে
৫>নাক ধরে মুখ বন্ধ করুন[পুলে ঝাপিয়া পড়ার আগে যেভাবে করেন] যতক্ষণ না হিক্কা চলে না যায়
৬>একটি কাগজের ব্যাগের ভিতর শ্বাসপ্রশ্বাস নিন।দিবেএটি রক্তে কার্বনডাইঅক্সাইডের পরিমান বাড়িয়ে
৭ >খুব দ্রুত খাবার খেলে খাবারের ভিতর ভিতর বাতাস ডুকে যায় যেটি নার্ভ কে উত্তেজিত করে।ঠিকভাবে খাবার চাবিয়ে খেলে এবং পরিমিত পানি পান করে হিক্কা এড়াতে পারবেন l তারপর ও যদি কাজ না হয় তবে ম্যাগনেসিয়াম ট্যাবলেট [এন্টাসিড] হিক্কা রোধে কাজ হবে বলে বেশ আশাবাদী

Share.

Leave A Reply