মাযহার : গাজীপুরের পাতারটেক ও পশ্চিম হারিনালের লেবুবাগানে পুলিশ-র‌্যাবের পৃথক অভিযানে ৯ জঙ্গি নিহত হওয়ার পর থেকে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। জঙ্গি আতঙ্কে রয়েছেন সেখানকার বাসিন্দারা।

গাজীপুরে জঙ্গি আস্তানায় পুলিশের অভিযান

গাজীপুরে জঙ্গি আস্তানায় পুলিশের অভিযান

গত শনিবারের জঙ্গিবিরোধী অভিযানের পর বাসিন্দাদের মনে ভীতির সঞ্চার হয়েছে। তারা ভাবতেই পারেছন না যে, পাশে বা একই ভবনে জঙ্গিদের সঙ্গে তারা থাকছেন।

ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, পাতারটেকের বাড়িটিতে চারটি ফ্ল্যাট  রয়েছে। যার একটি জঙ্গিরা ভাড়া নিয়েছিল। আর বাকিগুলোতে পরিবার থাকে। বাড়িটি বেশ খোলামেলা। ওই বাড়ির সঙ্গে আর কোনো বাড়ি নেই। বাড়িটির তিন পাশেই নানা ধরনের গাছ রয়েছে। এক পাশে জলাশয়।

ওই বাড়ির একটি ফ্ল্যাটে থাকেন আসমা বেগম। জানতে চাইলে গাজীপুর টাইমসকে তিনি বলেন, অভিযানের সময় পুলিশ বাড়িটি ঘিরে ফেললে তিনি আতঙ্কিত হয়ে ওঠেন। তার মতো আশপাশের বাসিন্দারাও আঁতকে ওঠেন। মুহুর্মুহু গুলি আর গ্রেনেডের বিকট শব্দে আতঙ্ক আরও বেড়ে যায় তাদের। এ আতঙ্ক গতকালও বিরাজ করছিল তার মনে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পাশের বাড়ির একজন বাসিন্দা জানান, তাদের এলাকায় এত বড় জঙ্গি আস্তানা গেড়েছে তা তারা বুঝতেই পারেননি। বাড়িটির পাশের চা-বিক্রেতা মফিজ উদ্দিন বলেন, বাড়িটি সুলাইমান সরকার সৌদি প্রবাসীর। কিন্তু তার ভাই কালীগঞ্জের জাঙ্গালিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার আরবির শিক্ষক ওসমান গণি বাড়িটি দেখাশোনা করেন। ঘটনার পর পুলিশ তাকে আটক করেছে।

অভিযানের সময় ছোড়া গ্রেনেড ও গুলির ঘটনায় তারা এখনও আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন। আয়েশা বলেন, অনবরত গ্রেনেড ও গুলির শব্দে তার শিশু সন্তান প্রচ- ভয় পেয়েছে। ঘটনার পর থেকে কোল থেকেই নামতে চাচ্ছে না। গাজীপুর জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সবুর জানান, তারা নিচ তলার একটি ফ্যাটের রুমে ছিলেন। স্বজনদের কাছে তাদের বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। তারা ভালো আছেন।

অভিযান শেষে পাতারটেক এলাকার গণ্যমান্য পাঁচ ব্যক্তিকে জঙ্গিদের লাশ দেখায় পুলিশ। তাদের মধ্যে দুজন হলেনÑ আলফাজ উদ্দিন পলাং ও মোহাম্মদ আলী। আলফাজ উদ্দিন পলাং বলেন, পুলিশ লাশগুলো আমাদের দেখিয়েছে। তবে কাউকেই আমরা চিনি না। এর আগেও দেখেছি বলে মনে হচ্ছে না। তার মতো একই কথা জানালেন মোহাম্মদ আলীও। বাড়িটির সামনের সড়কেই নানা-নাতি নামক একটি মুদি দোকানের মালিক মফিজ মিয়া বলেন, পুলিশ অভিযান চালানোর পর তারা জঙ্গি আস্তানার বিষয়টি জানতে পারেন। এর আগে এ বিষয়টি বুঝা যায়নি।

গাজীপুর টাইমস/১০/১০/১৬/০০৭

Share.

Comments are closed.